বাংলাদেশে ২০২৪ সালের রমজান মাস কবে থেকে শুরু? ২০২৪ সালে রোজা কত তারিখে শুরু হবে?

চলতি বছরের রমজান মাস শেষ না হতেই সবার জানার ইচ্ছে ২০২৪ সালের রমজান কত তারিখে হবে? এমন প্রশ্নের জিজ্ঞাসা ও কৌতূহল প্রায় অনেকেরই। আবার কেউ কেউ জানতে চান ২০২৪ সালের শবে বরাত ও শবে কদর কবে হবে? ২০২৪ সালের রমজান কখন শুরু হবে এই প্রশ্নের উত্তর মূলত আপনি কোথায় থাকেন বা সেসময় কোথায় অবস্থান করছেন তার উপর নির্ভর করবে।

তাই ২০২৪ সালের পহেলা রমজান কত তারিখে ও রোজার ঈদ কত তারিখে হবে তার সম্ভাব্য তারিখ আজকের পোস্টে তুলে ধরা হলো।

সমগ্র বিশ্বেই মুসলিমরা রমজান মাসকে অত্যন্ত পবিত্র মাস বলে মনে করেন। পবিত্র এ রমজান ইসলামের তৃতীয়তম স্তম্ভ। পবিত্র এই মাসে ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত এক মাস উপবাস পালন করেন। মুসলিমরা সূর্যাস্তের পর ইফতার ও সূর্যোদয়ের আগে সাহরি গ্রহণ করে থাকেন। এতে করে এসময়ে মুসলমানদেরকে ভোর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত খাওয়া-দাওয়া, পান করা, ধূমপান এবং স্বামী-স্ত্রীর ঘনিষ্ঠতা থেকে বিরত থাকতে হবে।

আরবি হিজরি সনের মাসসমূহ চাঁদ দেখার উপর অনেকটাই নির্ভরশীল। তাই ২০২৪ সালের রমজান মাস ঠিক কত তারিখে কিংবা ২০২৪ সালের রমজান কোন দিন শুরু হবে— তা পুরোপুরি নিশ্চিত করে বলা অনেকটা অসম্ভব। তবে আধুনিক বিজ্ঞান ও জৌতিশাস্ত্রের কল্যাণে এখন আগে থেকে সম্ভাব্য দিন ও তারিখ জেনে নেওয়া সম্ভব। এ প্রক্রিয়ায় রমজানের চাঁদ কিংবা ঈদুল ফিতর বা শাওয়াল মাসের চাঁদ কবে উদিত হবে তার সম্ভাব্য আগাম ধারণা পাওয়া যায়। যার ফলস্বরূপ আগামী ২০২৪, ২০২৫ এমনকি ২০২৬ সাল পর্যন্ত নতুন চাঁদের উদয়সহ নানান কিছু হিসেবে করে রেখেছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলো। সে হিসাব অনুযায়ী

পরবর্তী বছরগুলোতে যথাক্রমে সম্ভাব্য রমজান শুরুর তারিখগুলো হলো-

২০২৫ সালে রমজান কবে শুরু হবে?
২০২৫ সালের রমজান ১লা মার্চ শনিবার থেকে শুরু হবে এবং ৩০ মার্চ রবিবার পর্যন্ত ৩০ দিন চলবে।

২০২৬ সালে রমজান কবে শুরু হবে?
২০২৬ সালের রমজান বুধবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে এবং ১৯ মার্চ বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৩০ দিন চলবে।

২০২৭ সালে রমজান কবে শুরু হবে?
২০২৭ সালের রমজান সোমবার, ৮ই ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে এবং ৯ই মার্চ মঙ্গলবার পর্যন্ত ৩০ দিন চলবে।

রমজান ২০২৪ তারিখ | রোজা কবে থেকে শুরু ২০২৪

মূলত চাঁদের বিভিন্ন পর্যায়ের উপর ভিত্তি করে ইসলামিক ক্যালেন্ডার গণনা করা হয়। ২০২৪ সালের ইসলামিক ক্যালেন্ডার অনুসারে রমজান ১১ মার্চ থেকে ১০ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে। তারপর ১১ এপ্রিল ঈদ-উল-ফিতরের উত্‍সবে মেতে উঠবে গোটা বিশ্বের মুসলিম সমাজ। এদিন নিজের প্রিয়জনদের প্রতি উপহার দেওয়ার রীতি প্রচলিত আছে বিশ্বের সকল মুসলিমদের মাঝে। এছাড়া তাঁরা দরিদ্রদের মাঝে দান-খয়রাত করে থাকেন এই সময়।

২০২৪ সালের রমজান কত তারিখে হবে?
২০২৪ সালের রমজান কত তারিখে হবে?

বাংলাদেশে ২০২৪ সালের রোজা কত তারিখে?

হিজরি সনের মাসগুলো সাধারণত ২৯ কিংবা ৩০ দিনের হয়। ইসলামের নানান গুরুত্বপূর্ণ দিবস, ইবাদত ও উপলক্ষ-অনুষ্ঠানগুলো পালন করতে হিজরি সন গণনার ওপর নির্ভরশীল হতে হয়। এতে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন মুসলিম দেশগুলোতে সরকারি ছুটির ক্যালেন্ডার তৈরির সময় সম্ভাব্য দিন গণনা করে মাসের হিসেবে সম্ভাব্য তারিখে শবেবরাত, রমজান, ঈদুল-ফিতর, ঈদুল-আজহা, শবে মেরাজসহ অন্যান্য দিবস নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। এসবে দিনগুলো নির্ধারিত হয় কেবল চাঁদ দেখা সাপেক্ষে। তাই চাঁদের উপর নির্ভরশীল বলে (★) স্টার চিহ্নিত করে জানিয়ে দেওয়া হয়।

আরবি বৎসর গণনা করা হয়ে থাকে ৩৫৫ বা ৩৬৫ দিনে। এদিকে বাংলা বা ইংরেজি বছরগুলো নির্দিষ্টভাবে ৩৬৫ দিনে হয়ে থাকে। এতে প্রতি বছর ইসলামিক দিনগুলো (শবেবরাত, রমজান, ঈদুল ফিতর, ঈদুল আজহা, শবে মেরাজসহ অন্যান্য দিবসগুলো) ১০ থেকে ১১ দিন করে এগিয়ে যায়।

রমজান ২০২৪ কোন মাসের কত তারিখে হবে?

মুনপেইজ বা মুনসাইটের হিসাব মতে এখন পর্যন্ত, রমজান ২০২৪ ইসলামিক ক্যালেন্ডারে হিজরি সন ১৪৪৫ এর রমজানের সাথে মিল রেখে ১০ মার্চ, ২০২৪ তারিখে শুরু হওয়ার পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।

২০২৪ সালের রমজান ৩০ দিন স্থায়ী হবে বলে আশা করা যাচ্ছে, যার মানে হলো যে ঈদ-উল-ফিতর সম্ভবত মঙ্গলবার, ৯ এপ্রিল বা শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২৪-এ পড়বে৷ এরপরও সবকিছু চাঁদ দেখা এবং ধর্মমন্ত্রণালয়ের ঘোষণার ওপর নির্ভরশীল।

সারা বিশ্বের মুসলমানরা এই পবিত্র মাসে রোজা রাখা, কোরআন তেলাওয়াত করা, স্থানীয় মসজিদে অতিরিক্ত রাতের নামাজে অংশ নেওয়া এবং অন্যান্য ধর্মীয় ক্রিয়াকলাপে অংশ নেন। এছাড়াও, এ পবিত্র মাসে অন্যান্যদের প্রতি উদারতা এবং সহানুভূতিশীল কাজগুলো করতে অত্যন্ত উৎসাহিত করা হয়।

চাঁদ দেখা গেছে কি না তার উপর নির্ভর করে দেশ ভেদে রমজানের তারিখ পরিবর্তিত হতে পারে। এখানে দেওয়া সম্ভাব্য তারিখগুলো রমজান উদযাপনের জন্য উত্তর আমেরিকার ফিকহ কাউন্সিল কর্তৃক গৃহীত তারিখগুলোর উপর ভিত্তি করে। মনে রাখবেন, এই তারিখগুলো জ্যোতির্বিজ্ঞানের গণনার উপর ভিত্তি করে তৈরি এবং তা খালি চোখে চাঁদের প্রকৃত দেখার উপর ভিত্তি করে তৈরিকৃত নয়।

Leave a Comment