দাঁতের ব্যথা ঘরোয়া ও প্রাকৃতিক উপায়ে প্রতিকারের নিয়ম

দাঁতের ব্যথার কারণে ঘাড়ে বা মুখে ব্যথা হতে পারে, যা আপনাকে দাঁতের ব্যথা বন্ধ করার জন্য কিছু করতে মরিয়া করে তোলে। এই ব্যথা খুব উত্তেজনাপূর্ণ এবং দুর্বল হতে পারে এ কারণে এটি অতি কষ্টকর ও অসহ্য অনুভূতি দিয়ে থাকে।

দুর্ভাগ্যবশত দাঁতের ব্যথা প্রায়শই সবচেয়ে খারাপ সম্ভাব্য মুহুর্তে আঘাত করে। যেমন মাঝরাতে বা যখন আপনি আপনার দাঁতের ডাক্তারের কাছ থেকে শত শত মাইল দূরে থাকেন। তবে ঘরে বসে ঘরোয়া টিপস প্রয়োগ করা যেতে পারে যা কয়েক ঘন্টার বা খানিকটা সময়ের জন্য ব্যথা কমাতে পারে।

যদিও এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলো আপনাকে দাঁতের ব্যথা থেকে সাময়িক উপশম দিতে পারে কিন্তু আপনার দাঁত এবং মাড়ির স্বাস্থ্যের উপর নজর রাখতে আপনাকে অবশ্যই নিয়মিত আপনার ডেন্টিস্টের কাছে যেতে হবে। যদি ব্যথা দীর্ঘ সময় ধরে চলতে থাকে, তবে আপনাক অবশ্যই দাঁতের ডাক্তারের কাছে দ্রুত শরনাপন্ন হতে হবে এবং দাঁত ব্যথার সঠিক কারণ জানাতে এবং সেই অনুযায়ী চিকিত্সা শুরু করতে হবে।

দাঁতের ব্যথার ঘরোয়া প্রতিকার নিয়ে নিচে কয়েকটি উপায় উপস্থাপন করা হলো-

রসুন

দাঁত ব্যথা উপশমে রসুন বেশ কার্যকরি। তাজা রসুনে অ্যালিসিন থাকে, যাতে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে। অ্যালিসিনের কার্যকরি সুবিধা পেতে রসুনের সাথে লবঙ্গ গুঁড়ো করে মিশ্রিত করে সামান্য লবণ নিয়ে মিশ্রণটি আক্রান্ত দাঁতে লাগাতে হবে বা চিবিয়ে খেতে হয়।

আইস প্যাক

যদি দাঁতের ব্যথা কোনোরূপ আঘাতের কারণে হয় বা মাড়ি ফুলে যায় তাহলে আইস প্যাক ব্যবহার করতে পারেন কেননা এতে আইস প্যাক দাঁতের ব্যথা কমাতে অনেকটা সহায়তা করে। বরফের প্যাক প্রয়োগে রক্তনালীগুলোকে সংকুচিত করে, আক্রান্ত স্থানে রক্তের প্রবাহকে ধীর করে দেয়। এটি ব্যথা অসাড় করতে, ফোলাভাব ও প্রদাহ কমাতে সহায়তা করে।

আদা

আদা ও গোলমরিচ একসঙ্গে মিশিয়ে তৈরিকৃত পেস্ট ব্যবহারে দাঁতের ব্যথা নিরাময়ে জাদুকরি কাজ করে। এজন্য আধা চা চামচ আদার পেস্ট নিন এবং সমপরিমাণ গোলমরিচের সাথে মিশিয়ে নিন। এতে দুই থেকে তিন ফোঁটা অলিভ অয়েল মিশিয়ে আক্রান্ত দাঁতের জায়গায় লাগিয়ে নিন এবং মিশ্রণটি ১০-১৫ মিনিটের জন্য রাখুন।
এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্রক্রিয়াটি সপ্তাহে একবার বা দুবার প্রয়োগ করুন।

লবঙ্গ

দাঁতের ব্যথা নিরাময়ের জন্য লবঙ্গ মশলাটি ব্যবহার করতে পারেন। যেহেতু লবঙ্গ একটি অ্যান্টিসেপটিক, তাই এটি প্রদাহ ও ব্যথা কমাতে উপকারী। একটি তুলোর বলের উপর লবঙ্গ ও তেল লাগিয়ে তা বেদনাদায়ক জায়গায় লাগাতে পারেন বা সরাসরি আপনার দাঁতে তেলের ফোঁটা দিয়ে লবঙ্গ রাখতে পারেন। অথবা আপনি এক গ্লাস পানিতে লবঙ্গ ও এক ফোঁটা তেলও দিতে পারেন এবং তা মাউথওয়াশ হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন।

টি ব্যাগ

দাঁতে ঠান্ডা বা গরম টি ব্যাগ ব্যবহার করেও ব্যথা উপশম করা যায়। এজন্য একটি ব্যবহৃত চা ব্যাগ ঠান্ডা হয়ে গেছে এবং হালকা উষ্ণ রয়েছে এমন টি ব্যাগ বাছাই করতে হবে। অথবা কয়েক মিনিটের জন্য ফ্রিজারে একটি ব্যবহৃত টি ব্যাগ রাখুন, তারপর এটি আপনার দাঁতে লাগান। চা আপনার দাঁতে দাগ ফেলতে পারে, তাই প্রায়ই এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করবেন না।

হাইড্রোজেন পারক্সাইড

হাইড্রোজেন পারক্সাইড দাঁতের প্রদাহ এবং ব্যাকটেরিয়াকে আক্রমণ করার জন্যও দরকারী। পাশাপাশি, হাইড্রোজেন পারক্সাইড মাড়ির রক্তক্ষরণ নিরাময় করতে পারে। হাইড্রোজেন পারক্সাইড ব্যবহার করার সময়, সঠিকভাবে হাইড্রোজেন পারক্সাইড পাতলা দ্রবণ তৈরি করে নিতে হবে। সমপরিমাণ অংশ পানির সাথে ৩-শতাংশ হাইড্রোজেন পারক্সাইড মেশাতে হবে। সাবধান তৈরিকৃত দ্রবণ গিলে ফেলবেন না। দ্রবণটি মাউথওয়াশ হিসেবে ব্যবহার করুন। হাইড্রোজেন পারক্সাইড দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলার পর কয়েকবার সাধারণ পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে ভুলবেন না।

নিম বা মারগোসা ছালের ব্যবহার

নিম এবং মারগোসা উভয় গাছের ছালেই দাঁত ব্যথা উপশম নিরাময়কারী গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে। একটি পাত্রে দুই কাপ পরিমাণ পানি, দুই ইঞ্চি ছাল এবং ছয়টি লবঙ্গ একসাথে ফুটানো পর্যন্ত গরম করুন। তারপর তরলটিকে একটি জারে ছেঁকে নিন এবং একটি সিল করা বা বদ্ধ পাত্রে নিয়ে ফ্রিজে সংরক্ষণ করুন। উক্ত তরল ঠান্ডা হয়ে গেলে, একটি তুলোর বল ব্যবহার করে দাঁতে ব্যথা যুক্ত স্থানে প্রয়োগ করুন।

মধু এবং দারুচিনি

মধু এবং দারুচিনি মিশিয়ে ঘরে বসে পেস্ট তৈরি করে নিতে পারেন। মধু প্রাকৃতিকভাবে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এবং দারুচিনি প্রাকৃতিকভাবে প্রদাহ বিরোধী। দাঁত ব্যথা উপশম করার জন্য পাঁচ চা চামচ মধুর সাথে এক চা চামচ গুঁড়ো দারুচিনি মেশান যতক্ষণ না এটি একটি আঠালো পেস্ট তৈরি করে। এই মিশ্রণটি দিনে কয়েকবার সরাসরি দাঁতে ব্যবহার করতে পারেন।

শসা

একটি তাজা ও শীতল শসা টুকরো করে দাঁতের ব্যথাযুক্ত স্থানের উপরে রাখতে পারেন। এছাড়া শসা ম্যাশ করে এবং এর সাথে শিলা লবণ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে আক্রান্ত দাঁতে সেই পেস্ট লাগানো যাবে এবং পেস্টটি ১০ মিনিটের জন্য লাগিয়ে রাখুন। ব্যথা কমে গেলে, ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন এবং প্রয়োজনে প্রতিদিন প্রক্রিয়াটি পুনরাবৃত্তি করুন।

পেয়ারা পাতা

পেয়ারা পাতা জীবাণুনাশক ও দাঁতের প্রদাহ বিরোধী, দাঁতের ব্যথার প্রতিকারের  পেয়ারা পাতা বেশ কার্যকরি। দদাঁতের ব্যথা উপশম করতে কেবল কয়েকটি পেয়ারা পাতা চিবিয়ে নিন। আপনি যদি পেয়ারা পাতা খুঁজে না পান তবে বিকল্প হিসাবে তাজা পালং পাতা ব্যবহার করতে পারেন।

পেঁয়াজ

পেঁয়াজ রান্নাবান্না হিসেবে ব্যবহার হলেও ইতিহাস জুড়ে এটি ঔষধি উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয়েছে। দাঁতের ব্যথা লাগবের জন্য এক টুকরো কাঁচা পেঁয়াজ কেটে নিন এবং এর টুকরো মুখে নিয়ে আলতো করে দাঁতে চাপ দিন। এই প্রতিকারটি আপনার ব্যথা কমিয়ে দেবে এবং ব্যাকটেরিয়া হ্রাসে সাহায্য করবে।

হলুদ

হলুদে আছে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিসেপটিক। যা দাঁতের ব্যথা উপশম করতে এবং সংক্রমণ নিরাময়ে সহায়তা করে। হলুদ দ্বারা দাঁতের ব্যথা উপশন করতে  তেল ও হলুদ একসাথে মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন।
আক্রান্ত দাঁতে লাগাতে তুলোর বল ব্যবহার করুন। ১০ মিনিটের জন্য পেস্টটি দাঁতে লাগিয়ে রাখুন। পেস্টটি ভুলেও গিলে ফেলবেন না, তাই সতর্ক থাকুন। এরপর মুখ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ভালো ফলাফলের জন্য দিনে অন্তত ১ বার বা ব্যথা কমে যাওয়া পর্যন্ত বারবার প্রয়োগ করুন।

উপরিউক্ত কৌশল প্রয়োগ করে দাঁতের ব্যাথা কিঞ্চিৎ উপশম হলেও দাঁতের ব্যাথা থেকে পরিত্রাণ পেতে দাঁতের যত্ন নিতে হয় শুরু থেকে, আবার যাঁদের দাঁতে ব্যাথার স্থায়ী উপশম পেতে চান তাঁরা অবশ্যই অভিজ্ঞ ডাক্তারের শরনাপন্ন হবেন। ভারী বা শক্ত কোনো কিছু মুখে নিয়ে দাঁত দিয়ে চিবিয়ে খাওয়ার অভ্যাস পরিহার করতে পারেন। নিয়মিত দাঁত ব্রাশ করুন। দাঁতের যত্নে সচেতন থাকুন। ধন্যবাদ।

Leave a Comment